চট্টগ্রাম, , মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮

পারকি বীচে জমজমাট অবৈধ কার্যকলাপ

প্রকাশ: ২০১৮-১০-২৩ ১৩:৩৯:০৩ || আপডেট: ২০১৮-১০-২৩ ১৩:৩৯:০৩

নিজস্ব প্রতিনিধি, আনোয়ারা : আনোয়ারা পারকি সমুদ্র সৈকতে দিনদিন বাড়ছে পর্যটকের পথচলা। বিভিন্ন ছুটির দিন, শুক্রবারসহ প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসছে হাজার হাজার দর্শনার্থী। বছরের শুরু থেকেই ফেব্রুয়ারি মাসেই চলছে পর্যটকদের উচ্ছে পড়া ভীড়। বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও শিল্প কারখানার শ্রমিকরা জোটবদ্ধভাবে আসছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য।

কিন্তু সে সৌন্দর্যকে নষ্ট করার জন্য কিছু অসাধু ব্যবসায়ী সৈকত এলাকায় অর্ধশতাধিক খাবারের নামে দোকান গড়ে তুলে প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে অবৈধ ব্যবসা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পারকি সৈকত এলাকায় অর্ধশতাধিক খাবারের দোকান গড়ে উঠেছে। এসব দোকানের প্রত্যেকটির ভিতরে আলাদাভাবে ছোট ছোট কক্ষ রাখা হয়েছে, একেকটি কক্ষ যেন মিনি পতিতালয়। সেখানে প্রকাশ্যে চলছে দেহ ব্যবসা। পাশাপাশি মাদকের ভয়াবহতায় এলাকার যুব সমাজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বিপদগামী আর নেশায় আক্রান্ত হচ্ছে স্কুল কলেজে পড়–য়া শিক্ষার্থীরা। এই অপকর্মের কারণে পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষৎ অন্ধকার আমানিশার অতল গহবরে নিমজ্জিত হচ্ছে। এসবে জড়িতরা কোনো আইন-কানুন বা সামাজিক দায়বদ্ধতার তোয়াক্কা না করে চালিয়ে যাচ্ছে মাদক ও দেহ ব্যবসার মতো গুরুতর অপরাধ। আর এ অপকর্মে তাদের মদদ দিচ্ছে সমাজের কিছু প্রভাবশালী ও স্বার্থন্বেষী মহল।

সূত্রে জানা যায়, পারকি বিচ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস প্রশাসনকে ম্যানেজ করে, অন্য ব্যবসায়ীদের টাকা নিয়ে নিরাপদে এ দেহ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। বিনিময়ে খদ্দেরের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। অনেক সময় টাকা দিতে অপারগ হলে পর্যটকদের নামিদামি মোবাইলও কেড়ে নেয়া হয় এ আসরে। শুধু তাই নয়, সৈকতে বেড়াতে আসা অনেক প্রেমিক যুগল তাদের হাতে হেনন্তা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এমন অনেক ঘটনা থানা পর্যন্ত গড়িয়েছে বলে জানা যায়। এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে স্থানীয় বারশত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম.এ কাইয়ূম শাহ্ একাধিকবার অভিযান চালিয়ে কুঠির গুলো গুড়িয়ে দিলেও তা কমেনি।

এছাড়াও সৈকতের প্রতিটি দোকান থেকে মাসিক আটশ টাকা করে চাঁদা তোলা হয় আর সে সব টাকায় প্রভাবশালীদের ম্যানেজ ও পুলিশের মাসোহারা দেয় ব্যবসায়ী সমিতি। সমিতির সভাপতি মো. ইলিয়াছ দৈনিক ভিত্তিতে আলাদা উৎকোচ দিতে হয় বলেও জানা যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সৈকতের এক দোকানের কর্মচারী বলেন, বিভিন্ন জায়গা থেকে বোরকা পরা পতিতারা এখানে আসে। এখানকার দোকানের ভিতর ছোট ছোট রুম করা আছে। সেখানে তারা খদ্দের নিয়ে প্রবেশ করে তারপর কাজ সেরে চলে যায়। যারা মেয়ে নিয়ে আসে তাদের কাছ থেকে ঘর ভাড়া ঘন্টায় পাঁচশ টাকা। আর যারা আমাদের মাধ্যমে চাহিদা মাফিক মেয়ে নেয় তাদের কাছ থেকে দেড় থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়া হয়।

জানতে চাইলে কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর মাহমুদ বলেন, থানায় নতুন যোগ দিয়েছি তাই বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ খবর নিয়ে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোন অসামাজিক কার্যকলাপ চললে তা বন্ধ করব।

জানতে চাইলে পারকি বিচ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস বলেন, এসব করি না আমি, সৎ ভাবে ব্যবসা করি।

Leave a Reply

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ

October 2018
S M T W T F S
« Sep   Nov »
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  
%d bloggers like this: