চট্টগ্রাম, , শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮

রাঙামাটিতে রমরমা জুয়ার আসরে মোবাইল কোর্টের হানা : আটক-২৯, সোশ্যাল ক্লাব সিলগালা

প্রকাশ: ২০১৮-০৮-১৯ ১০:৫১:৪৬ || আপডেট: ২০১৮-০৮-১৯ ১০:৫১:৪৬

আলমগীর মানিক, রাঙামাটিপ্রতিনিধি:  রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন স্থানে বাসাবাড়ির প্লাট ভাড়া নিয়ে একটি চক্র নিয়মিতভাবে জুয়ার আসর পরিচালনা করছে। ৫০ থেকে ৫’শ, হাজার টাকার বিনিময়ে প্রতিটি জুয়ার বোর্ড পরিচালনা করে এই চক্রটি প্রতি রাতে ভাড়া বাবদ আয় অর্ধলক্ষ টাকার মতো আয় করে পকেটস্থ করলেও এসব জুয়ার আসরে গিয়ে লাখ লাখ টাকা খোঁয়াচ্ছে সভ্রান্ত পরিবারের সদস্যরা। এসব সদস্যদের অনেকেই আবারা সরকারী-বেসরকারি বিভিন্ন অফিসে বড় বড় পদে চাকুরিও করেন। দেশী-বিদেশী মদের আসর বসিয়ে চলা এসব জুয়ার আসর একটা সময়ে পরিণত হয় অসামাজিক কার্যকলাপের নিরাপদ আস্তানায়। এসব থেকেই শুরু হয় ইভটিজিংসহ নানা ধরনের অসভ্য আচরনের। এমনিতর পরিস্থিতিতে পড়ে কোনো কিছুই করতে নাপেয়ে নিজের স্ত্রী-সন্তানদের নিরাপত্তায় রাঙামাটি শহরের কালিন্দীপুর এলাকার কিছু সচেতন বাসিন্দা দ্বারস্থ হয় রাঙামাটি পুলিশ সুপারের।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, একটি চক্র কালিন্দিপুরস্থ জনৈক নীতিময় চাকমার বিল্ডিংয়ের নীচতলায় একটি ঘর ভাড়ায় নিয়ে সেখানে সোশ্যাল ক্লাব নামদিয়ে উক্ত জুয়ার আসরটি পরিচালনা করে আসছিলো। এখান থেকে এলাকার নারী ও মেয়েদেরকে নানা ধরনের অশ্লীল কথাবার্তার পাশাপাশি মাদকসেবীরা নানা ধরনের মাতলামী করতো।
জনগুরুত্বপূর্ন বিষয়টি নিয়ে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে পুলিশ ও রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের যৌথ টিম শহরের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের বিপরীতে দক্ষিণ কালিন্দীপুর এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে। শনিবার দিবাগত রাত দশটার সময় পরিচালিত অভিযানে জুয়া খেলারত অবস্থায় ২৯জন জুয়ারীকে হাতেনাতে আটক করেন অভিযানের নেতৃত্বে থাকা রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট উত্তম কুমার দাশ ও রাঙামাটি জেলা গোন্দেয়া পুলিশের ভারপ্রাপ্ত ওসি আহসানুজ্জামান।

আটককৃতরা হলো- কানুরণ চাকমা, দিপন চাকমা, প্রয়াস চাকমা, মনি চাকমা, মানিক চাকমা, কেরল কৃষ্ণ চাকমা, রিপন চাকমা, গিরি চাকমা, টিপু চাকমা, মাহাবুব আলম, মিলন বিকাশ চাকমা, শান্ত মারমা, জগৎ জ্যোতি চাকমা, সুমতি রঞ্জন চাকমা, দয়াল কান্তি চাকমা, জ্ঞান প্রিয় চাকমা, সুনীল চাকমা, সনেন প্রিয় চাকমা, জীবন তালুকদার, সুমন চাকমা, সুনীল কান্তি চাকমা, মৃণীল চাকমা, মঙ্গল কুমার চাকমা, মো. জিয়া, মায়া চাকমা, অতুল চাকমা, এমভি চাকমা, অন্নদহ রঞ্জন চাকমা, দয়াল চাকমা। এসময় আটককৃতদের কাছ থেকে নগদ ৭৭ হাজার ৫৯০ টাকা জব্দ এবং বিপুল পরিমাণ জুয়া খেলার সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। আটককৃতদের মধ্যে অনেকেই বিভিন্ন অফিসের চাকুরী করেন বলেও জানাগেছে।

অভিযান পরিচালনার নেতৃত্বে থাকা ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক উত্তম কুমার দাশ জানান, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এই সামাজিক অপরাধ সৃষ্টির অন্যতম নিয়ামক জুয়া খেলার আসরে হানা দিই। এতে আমরা হাতেনাতে ২৯জনকে জুয়া খেলার আসরে পাই। পরে তারা তাদের দোষ স্বীকার করে সকলের সামনে। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে তাদেরকে ভবিষ্যতের জন্যে সতর্ক করাপূর্বক দেশীয় বঙ্গীয় জুয়া আইন ১৮৬৭ এর ৩ ধারা মোতাবেক প্রতিজনকে ১শ টাকা করে অর্থ দন্ডে দন্ডিত করা হয়।

আটককৃতদের প্রত্যেকের কাছ থেকে আর জুয়া খেলবেনা এমন অঙ্গীকারনামা রেখে উক্ত ক্লাব ঘরটিকে সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

এসময় আটককৃতদের উদ্দেশ্যে ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক বলেন, আপনাদের সকলের ডাটা সংরক্ষণ করা হয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে আমরা আবারো অভিযান পরিচালনা করবো। সেসময় যদি আপনাদেরকে জুয়ার আসরে পাওয়া যায়, তাহলে জেল ও জরিমানা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা হবে।

তিনি বলেন, সামাজিক অপরাধ সৃষ্টির অন্যতম নিয়ামক হলো জুয়া খেলা। এটির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের মাধ্যমেই সমাজে অপরাধের সৃষ্টি হয়। সমাজে পারিবারিক কলহ বেড়ে যায়। যার ফলে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়।

বিষয়টি মাথায় রেখেই রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদের নির্দেশনায় জেলার বিভিন্ন স্থানে নিয়মিতভাবেই মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন।

মাদকসেবীদের বিরুদ্ধে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার আহবান জানিয়ে নির্বাহী উত্তম কুমার দাশ বলেন, প্রয়োজনে তথ্য প্রদানকারিদের সার্বিক পরিচয় গোপন রাখার নিশ্চয়তা দেওয়া হবে।

Leave a Reply

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ

August 2018
S M T W T F S
« Jul   Sep »
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  
%d bloggers like this: