চট্টগ্রাম, , রোববার, ২১ অক্টোবর ২০১৮

‘মাদকের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি সমানতালে অভিযান চলবে’

প্রকাশ: ২০১৮-০৫-২৯ ১৮:২৯:০৪ || আপডেট: ২০১৮-০৫-২৯ ১৮:২৯:০৪

স্টাফ রিপোর্টার :  মাদকাসক্তি এক সর্বনাশা ব্যাধির নাম। মাদকের ব্যবহার ধ্বংস করে দেয় ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ এমনকি রাষ্ট্রকে। মাদকের ছোবল থেকে নব প্রজন্মকে বাঁচাতে ফেনী জেলা পুলিশ প্রশাসন দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। ছোট বড় বুঝিনা মাদককারবারি’দের বিষয়ে ও মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতিকে অভিষ্ঠ লক্ষ্যে পৌছাতে আমরা বদ্ধ পরিকর।মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে পুলিশ বাহিনীর অভিযান কঠোর ও অব্যাহত থাকবে। মাদক বিক্রেতারা সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে যতই ক্ষমতাধর হোক না কেন, সেটা বিবেচনাহীন,সুতরাং তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হবে পুলিশের কাজ।

জেলা পুলিশ প্রশাসনের মিলনায়তনে বিগত দশদিনের বিশেষ অভিযান পর্যালোচনা, মাদক ও মাদককারবারি দের বিষয়ে জেলা পুলিশের গুরুত্বপূর্ণ সভা সভাপতির বক্তব্যে পুলিশ সুপার এস এম জাহাঙ্গীর আলম সরকার এই কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেকোনো মূল্যে মাদক ব্যবসা বন্ধের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন। এর বাহিরে কিছু ভাবার সময় নেই। মাদকের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি সমানতালে অভিযান চলবে।
আমাদের -সবার প্রচেষ্টায় দেশকে মাদক মুক্ত করে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য একটি বাসযোগ্য বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সক্ষম হবো।
তিনি উপস্থিত অফিসার ইনচার্জ দের উদেশ্যে বলেন, আপনাদের এই অর্জন গুলোতে সন্তুষ্টি দেখার কিছু নেই, সর্বশেষ মাদককারবারি’কে ও আইনের আওতায় আনার আগে কোন অর্জনকে সর্বোত্তম বলা যাবে না।

বিগত ১৬ মে হতে ২৭ মে পর্যন্ত ফেনী সদর মড়েল থানায় বত্রিশ লাখ পনের হাজার নয়শত টাকা মূল্যমানের ৭৯৪৩ পিস ইয়াবা টেবলেট, ৩৫০ বোতল ফেন্সিড়িল, ৪৮ কেজি ৫০০ গ্রাম গাঁজা, ৭৭ বোতল বিদেশী মদ, ৬০ লিটার দেশীয় মদ সহ গ্রেফতার হয় ৬৯ জন মাদক কারবারি, ৬৫ মামলার বিপরীতে ৭৩ জনকে আসামী করে নিয়মিত মামলা হয়।

একই সময়ে দাগনভুঞা থানায় ৩,৩২’৩০০ (তিন লাখ বত্রিশ হাজার তিনশত) টাকা মূল্যমানের ৪০৩ পিস ইয়াবা টেবলেট, ১৫০ বোতল ফেন্সিড়িল, ১৮ কেজি ৩৫০ গ্রাম গাঁজা, ৩০ বোতল বিদেশী মদ, ২২ লিটার দেশীয় মদ সহ গ্রেফতার হয় ২২ জন মাদক কারবারি, ১৮ মামলার বিপরীতে ২৪ জনকে আসামী করে নিয়মিত মামলা হয়।

সোনাগাজী থানায় ১’০৯’০০০(এক লাখ নয় হাজার) টাকা মূল্যমানের ১৯০পিস ইয়াবা টেবলেট, ৭৭ বোতল ফেন্সিড়িল, ৭কেজি ২০০ গ্রাম গাঁজা, ১৪ বোতল বিদেশী মদ, ৬ লিটার দেশীয় মদ সহ গ্রেফতার হয় ১৮ জন মাদক কারবারি, ১৬ মামলার বিপরীতে ২২ জনকে আসামী করে নিয়মিত মামলা হয়।

ছাগলনাইয়া থানায় ৮৩৯ ০০০ ( আট লাখ উনচলি­শ হাজার) টাকা মূল্যমানের ৬১০ পিস ইয়াবা টেবলেট, ২৭৭ বোতল ফেন্সিড়িল, ২৭ কেজি ২০০ গ্রাম গাঁজা, ১০৭ বোতল বিদেশী মদ, ১৯ লিটার দেশীয় মদ, ২৮ বোতল ভোতকা, ১৯ বোতল হুইস্কী সহ গ্রেফতার হয় ৪৩ জন মাদক কারবারি, ৪১ মামলার বিপরীতে ৪৭ জনকে আসামী করে নিয়মিত মামলা হয়।

এদিকে ফুলগাজী থানায় ৩৫০০০০ (তিন লাখ পঞ্চাশ হাজার) টাকা মূল্যমানের ১৭০ পিস ইয়াবা টেবলেট, ১০৪ বোতল ফেন্সিড়িল, ৭ কেজি ২০০ গ্রাম গাঁজা, ১০৭ বোতল বিদেশী মদ, ৭ লিটার দেশীয় মদ’ ভোতকা ৮ বোতল, ২১ বোতল হুইস্কী সহ গ্রেফতার হয় ১৬ জন মাদক কারবারি, ১৪ মামলার বিপরীতে ১৯ জনকে আসামী করে নিয়মিত মামলা হয়।

পরশুরাম থানায় ২৩৫ ৫০০ (দুই লাখ পঁয়ত্রিশ হাজার পাঁচশত) টাকা মূল্যমানের ২০০ পিস ইয়াবা টেবলেট, ১০০ বোতল ফেন্সিড়িল, ৩কেজি ২০০ গ্রাম গাঁজা, ২৭ বোতল বিদেশী মদ, ৭ লিটার দেশীয় মদ ৩ বোতল ভোতকা, ৯বোতল হুইস্কী সহ গ্রেফতার হয় ১২ জন মাদক কারবারি, ১৩ মামলার বিপরীতে ১৬ জনকে আসামী করে নিয়মিত মামলা হয়।

এই সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী মনিরুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল উক্য সিংহ,সহকারী পুলিশ সুপার সোনাগাজী জুনায়েদ কাউসার, সহকারী পুলিশ সুপার পরশুরাম ডাঃনিশান চাকমা ট্রাফিক প্রশাসন মীর গোলাম ফারুক, অফিসার ইনচার্জ ডিবি হারুন অর রশিদ, অফিসার ইনচার্জ ফেনী মড়েল থানা রাশেদ খাঁন চৌধুরী, অফিসার ইনচার্জ দাগনভুঞা আবুল কালাম আযাদ, অফিসার ইনচার্জ ছাগলনাইয়া এম মোর্শেদ পিপিএম, অফিসার ইনচার্জ ফুলগাজী হুমায়ন কবির, অফিসার ইনচার্জ পরশুরাম আবুল কাশেম চৌধুরী, আর আই জাহাঙ্গীর আলম ও ডি আই ওয়ান শাহীনুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

ক্যালেন্ডার এবং আর্কাইভ

May 2018
S M T W T F S
« Apr   Jun »
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
%d bloggers like this: